1. admin@voiceofnaogaon.com : admin :
শাহদৌলা সরকারি কলেজে বিজয় দিবস পালিত - ভয়স অফ নওগাঁ
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ১১:১৩ পূর্বাহ্ন
প্রধান খবর
ঈদের শুভেচ্ছা ও সতর্কতা জানিয়েছেন জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার শাহ্ ইফতেখার আহমেদ আহমেদ পিপিএম (বার) নবনির্বাচিত ভাইস-চেয়ারম্যান পপি’র বিরুদ্ধে অপপ্রচার নওগাঁ ব্লাড সার্কেলের বিশ্ব রক্তদাতা দিবস উদযাপন রির্জাভের গাছ চোরকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ কুষ্টিয়া শহরের পুরাতন আলফা মোড় এলাকায় সন্ত্রাসী হামলায় একজন গুরুতর আহত সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি নওগাঁয় নেশাগ্রস্ত হয়ে বাড়ি ফেরায় ছেলের লাঠির আঘাতে প্রাণ গেলো বাবার কারিতাসের উদ্যোগে শিশুদের অধিকার ও সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য মিডিয়া এ্যাডভোকেসী ৪০ শতাংশ জমিতে ওলকচু চাষ করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন কৃষক আবু বক্কর সিদ্দিক বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের জেসিএমএস বিভাগের শিক্ষার্থীদের ইন্টার্নশিপ সমাপনী প্রেজেন্টেশন অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনা’র কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে স্বেচ্ছাসেবক লীগের আলোচনা সভা, দোয়া, মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

শাহদৌলা সরকারি কলেজে বিজয় দিবস পালিত

  • প্রকাশিত: রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০২৩

আবুল হাশেম, রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধিঃ

যথাযথ মর্যাদায় রাজশাহীর বাঘায় শাহ্দৌলা সরকারি কলেজে মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। দিনের শুরুতে সূর্যোদয়লগ্নে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। কলেজ প্রাঙ্গনে অবস্থিত শহিদ মিনার ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক প্রদানের পর বেলা ১১ টায় কলেজ মিলনায়তনে দোয়া ও আলোচনাসভা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শনিবার সকালে সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানের শেষপর্বে মহান বিজয় দিবস-২০২৩ উপলক্ষে আয়োজিত বিভিন্ন বিষয়ের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।অনুষ্ঠানের উপস্থিত ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আবু বক্কর সিদ্দীক তিনি অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব দায়িত্ব পালন করেন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন মো আমিরুল ইসলাম বিভাগীয় প্রধান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ। অধ্যক্ষ বিজয়ীদের হাতে পুরুষ্কার তুলে দেন। আলোচনা অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থী-শিক্ষকগণ ও অংশ নেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে কলেজের অধ্যক্ষ মো আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, বাঙালির হাজার বছরের জীবন কাঁপানো ইতিহাস মহান স্বাধীনতা। বাংলাদেশের অভ্যুদয় বিশ্ব ইতিহাসে গৌরব দীপ্ত অধ্যায়। একাত্তরে সংঘটিত মুক্তিযুদ্ধ বাঙালির আত্মত্যাগ, প্রাণ বিসর্জন, মা-বোনের সম্ভ্রম হারানোর মর্মন্তুদ বেদনায় ভরপুর। দীর্ঘ নয় মাস বাঙালি স্বদেশে, রণাঙ্গনে ও প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতে আশ্রয় গ্রহণ করে জীবনযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়। বহুজনের বিবিধ বিসর্জন শেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় পতাকা ওড়ে,বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জন্ম হয়।

মহামুক্তির আনন্দ ঘোর এই দিনে এক নতুন উল্লাস জাতিকে প্রাণ সঞ্চার করে সজীবতা এনে দেয়। যুগ যুগ ধরে শোষিত বঞ্চিত বাঙালি চোখে আনন্দ অশ্রু আর ইস্পাত কঠিন দৃঢ়তা নিয়ে এগিয়ে যায় সামনে। বিন্দু বিন্দু স্বপ্নের অবশেষে মিলিত হয় জীবনের মোহনায়। বিশ্ব কবির সোনার বাংলা, নজরুলের বাংলাদেশ, জীবনানন্দের রূপসী বাংলা, রূপের তাহার নেইকো শেষ, বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ। বাঙালি যেন খুঁজে পায় তার আপন সত্ত্বাকে।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তারা বলেন, মেধা-মনন, সাহস ও সত্যনিষ্ঠায় নিজেকে সোনার মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই সোনার বাংলা গড়ে তোলা সম্ভব হবে। সেই সঙ্গে সার্থক হবে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মদান আর অগণিত মানুষের অবর্ণনীয় ত্যাগ-তিতিক্ষা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় নিবন্ধনের প্রক্রিয়াধীন।
Powered by: Nfly IT